post

ভূস্বর্গের পথে – লাদাখ কাশ্মীর

স্বর্গের পথে যাত্রা। স্বপ্ন হল সত্যি। প্রায় ২ বছর ধরে অনেক বার প্লান করে আবার পিছিয়ে এসে অবশেষে এই সেপ্টেম্বরে এসে সফল হলাম। 

পুরো প্লানঃ ঢাকা – কোলকাতা – দিল্লী – মানালী – জিসপা – লেহ – নুব্রা – ডিস্কিত – হুন্ডার – প্যাংগন – লেহ – কারগীল – শ্রীনগর – পেহেলগাম – জম্মু – দিল্লী – কোলকাতা – ঢাকা।

পুরো এলবামঃ
ফেসবুকঃ www.facebook.com/media/set/?set=a.10214330488837409&type=1&l=7fea88e8aa
ফ্লিকারঃ www.flickr.com/photos/162644243@N06/albums/72157703306658211

যারা লাদাখ ভ্রমণের পরিকল্পনা করছেন, তাদের জন্য সতর্কতামূলক পোস্ট এটি।

১। মানালী থেকে লেহ হয়ে শ্রীনগর পর্যন্ত হাইওয়েতে কয়েকটা উঁচু পাস পরে, যেগুলোর উচ্চতা অনেক বেশি। লেহ শহরের উচ্চতাও অনেক বেশি। অক্সিজেন স্বল্পতা এবং তুলনামূলক কম বায়ুচাপের কারণে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পড়ে। যাবার আগে অবশ্যই নিজের স্বাস্থ্য চেক করিয়ে নিবেন। বেশি বয়স হলে এবং হার্টের সমস্যা থাকলে এই রুটে ভ্রমণ না করাই শ্রেয়।

২। পুরো রুটটি কভার করতে হলে শ্রীনগর থেকে শুরু করাই ভাল। শ্রীনগর থেকে লেহ আস্তে আস্তে উপড়ে উঠে, যার কারণে শরীর এডজাস্ট করার মত পর্যাপ্ত সময় পায়। মানালী থেকে লেহ হটাত করে অনেক উপড়ে উঠে। মানালী থেকে রোটাং-ই অল্প সময়ে ৫-৬হাজার ফুট উঁচুতে। এই রুটে তাই বেশি অসুস্থ হয় মানুষ।

৩। মানালী – লেহ এবং লেহ – শ্রীনগর এক দিনে ট্রাভেল না করাই ভাল। আমরা মানালি – লেহ রুটে জিসপাতে আর লেহ – শ্রীনগর রুটে কারগিলে নাইট স্টে করেছিলাম।

৪। লেহ তে পৌঁছে একদিন বিশ্রাম অবশ্যই নিবেন, সময় থাকলে ২ দিন। যারা দিল্লী থেকে ফ্লাই করে লেহ তে যাবেন, তাড়া ২ দিন রেস্ট নিবেন লেহতে। এতে AMS এটাক হবার চান্স কমে যায়।

Read More

post

হিমালয় কন্যার প্রেমে

স্বর্গ ঘুরে এলাম! আনন্দ বিপদ হাসি কান্না মিলিয়ে অসাধারন একটা ট্যুর!

কলকাতা – শিমলা – মানালি – ধর্মশালা – ডালহৌসি – অমৃতসর – কলকাতা।
ব্যাপ্তিঃ ১১দিন।
বাহনঃ ট্রেন এবং গাড়ি

শুরুতেই বলে নেই, আমি বাজেট ট্রাভেলার নই। বছরে একবারই বড় ছুটি কাটাই বিধায় একটু আরাম আয়েশে কাটাই। সুতরাং আমার খরচ একটু বেশি হয়েছে, আমি বলে দিব কিভাবে কম খরচে আপনারা ঘুরে আসতে পারেন।

আমরা ছিলাম মোট ৬.৫ জন, মানে ৬ জন আর সাথে ৩ বছরের একটা মেয়ে, ওকে নিয়েই আমরা বেশি টেনশনে ছিলাম বাট শি ওয়াজ স্ট্রং!!

এবার আমাদের ঘুরতে যাবার একটাই উদ্দেশ্য ছিল – শুধুমাত্র স্নো দেখা। যারা প্রকৃতি দেখতে যাবেন, তাদের এই সময়ে না যাওয়াই শ্রেয়।

কলকাতা থেকে আমাদের ট্রেন ছিল ৪ তারিখ বিকেল ৬.৪০ এ, হাওড়া স্টেশন থেকে কালকা। আমরা ৬ জন ৪ যায়গা থেকে রওয়ানা দিব। এর মধ্যে আমিই হাওড়া থেকে সব থেকে দূরে ছিলাম, জেমস লং সরনী। বিকেল ৫টায় আমি উবার ডেকে গাড়িতে উঠলাম, ড্রাইভার জাস্ট ট্রিপ অন করল – আর সাথে সাথে এক দাদার ফোন – বাপ্পী বের হয়ো না, ট্রেন ডিলে হয়েছে! গাড়িতে উঠেই নেমে গেলাম আর ৮০ টাকা বেইজ ফেয়ার দিতে হল! কিছুক্ষন পর জানা গেল যে ট্রেন পরদিন সকাল ৮.৪০এ। যেমন তাড়াহুড়ো করে নিচে নেমেছিলাম, তেমনই আস্তে আস্তে উপরে উঠে আসলাম মন খারাপ করে। আমাদের সমস্ত গাড়ী আর হোটেল আগে থেকেই বুকিং দেয়া ছিল, তাই টেনশন বেড়ে গেল। Read More

post

মেঘালয় – দ্য গ্রীণ ভ্যালী

দ্য গ্রীন ক্যাপিটাল!

আগেই ঠিক করা ছিল যে এবার একটা লম্বা ট্রেন জার্নি করব। সেই মত বাঙ্গালোর থেকে গৌহাটির ট্রেন গৌহাটি এক্সপ্রেস এর টিকিট কাটলাম। ৫৪ ঘণ্টা শিডিউল টাইম! রাত সাড়ে এগারোটায় বাঙ্গালোর থেকে উঠলাম (যদিও ছাড়তে বেশ দেরী করেছিল), তিন রাত ট্রেনে কাটানোর পর সকাল সাড়ে পাঁচটায় গৌহাটি নামলাম। ৫১ ঘণ্টায়ই পৌঁছে যাই গৌহাটি। হলফ করে বলতে পারি, এই ট্রেন রাজধানি-দুরন্ত এর চেয়েও জোড়ে চলে। সমস্যা হয়েছিল একটু খাওয়া দাওয়া নিয়ে। যদিও অনেক ঘুরি বলে খাওয়া দাওয়া নিয়ে আমার তেমন সমস্যা হয় না, কিন্তু এবার একটু হয়েছিল। পরে স্টেশনে নেমে নেমে খাবার কিনে খেয়েছিলাম।

গৌহাটি নেমেই গাড়ীর খোঁজে বেরিয়ে পড়লাম, গন্তব্য শিলং। গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হচ্ছে বিধায় সবাই ৩ হাজার করে চাচ্ছিল। অনেক খোঁজার পর একজন ২২০০/- এ রাজি হল। গাড়ী নিয়েই বেরিয়ে পড়লাম শিলঙের উদ্দেশ্যে। গৌহাটি থেকে শিলং হাইওয়ে এক অনিন্দ্য সুন্দর হাইওয়ে। অনেকটা পথই চার লেনের আঁকাবাঁকা রাস্তা পাহাড়ের কোল ঘেঁষে। আর কিছুক্ষণ পর পর মেঘ এসে ভিজিয়ে দিয়ে যায়। ঠাণ্ডার সমস্যা না থাকলে অবশ্যই গাড়ীর জানালা খোলা রাখা উচিৎ। আমি একটু পর পর জানালা থেকে মাথা বের করে মেঘ খাচ্ছিলাম! মেঘে তো আর পেট ভরে না, তাই ঘন্টাখানেক পর গাড়ী থামিয়ে নাস্তা করে নিলাম। Read More

আমার ECA অভিজ্ঞতাঃ IQAS

শুরুতেই বলে নেই, আমি যা যা করেছি, আপনাদের তা তা করতে হবে এমন কথা নেই। IQAS এর সাইটে সকল তথ্য দেয়া আছে, ঠিকমত ফলো করলেই হবে। আমি যেটা শেয়ার করছি, তা আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা – আমি যা যা করেছি আর কি।

প্রথমেই বলে নেই, আমার গ্রাজুয়েশন কোন স্বনামধন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নয়, বরং একটি ছোটোখাটো বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে – ইবাইস ইউনিভার্সিটি। তাই শুরু থেকেই কনফিউশনে ছিলাম যে কোথা থেকে ECA করাবো। WES আমাকে non-recognised দিবে আমি নিশ্চিত। আর ICES এর সাইটে বাংলাদেশের ৩০+ ভার্সিটির নাম দেয়া আছে যে এগুলোর ECA তারা করাবে না। এর মধ্যে আমার ভার্সিটির নাম আছে। জীবনে প্রথম বারের মত চুয়েট ছেড়ে আসার জন্য আক্ষেপ হল।

অনেক ঘাটাঘাটি করে বেছে নিলাম ৩টা প্রতিষ্ঠান – ICAS, IQAS, CES. তিনটা কেই ইমেইল দিলাম আমার অবস্থা বর্ণনা করে। তিনটাই আমাকে একই রিপ্লাই দিল – ফাইল না দেখে বলতে পারবে না – কি আজব! IQAS বাড়তি হিসেবে যোগ করল, প্রার্থী যখন পাস করেছে, তখন যদি ঐ ভার্সিটি UGC অনুমোদিত থাকে, তবে তারা সাধারণত ECA করে। আর ICAS লিখল যে, ওরা আগে IBAIS এর সার্টিফিকেট ECA করেছে। Read More

আইটি প্রোফেশনালদের জন্য CIPS মেম্বারশীপ

সাস্কাচুয়ান অকুপেশন ডিমান্ড লিস্টে কিছু কিছু প্রফেশনে আলাদা করে সার্টিফিকেশন দরকার পড়ে। নিচের তিনটি প্রফেশন এর মধ্যে অন্যতমঃ

১। Computer Engineer
২। Software Engineer and Designer
৩। Web Developer and Designer

Computer Engineer পেশায় আবেদনের জন্য আপনাকে APEGS – Association of Professional Engineers and Geoscientists of Saskatchewan এর মেম্বারশীপ হতে হয়।

Software Engineer এবং Web Developer দের জন্য CIPS – Canadian Association of Information Technology Professionals এর মেম্বারশীপ দরকার পড়বে। আমরা আজ CIPS মেম্বারশীপ নিয়ে কথা বলব।

CIPS মেম্বারশীপ আপনি তিনটা স্ট্যাটাসের মাধ্যমে অর্জন করতে পারেন:
১। AITP – Candidate Membership as an Associate Information Technology Professional
২। ISP – Certified Membership as an Information Systems Professional
৩। ITCP – Certified Membership as an Information Technology Certified Professional of Canada  Read More

post

My IELTS Experience – 7.5

Listening – 8, Reading – 8, Writing – 6.5, Speaking – 7, Overall – 7.5
Date: 01 February 2018
Module: GT
Center: Wings, BC, Dhanmondi, Dhaka, Bangladesh.

My preparation for the exam was not adequate. I had planned to appear in the exam experimentally, so didn’t take it seriously. And by the way, I am always a last-minute student. In my every exam I always pulled an all-nighter. I flunked many times but I didn’t change my policy, lol. But this time, I didn’t burn the midnight oil, rather I just tried to find out the way how I would be marked! We will talk about that now 🙂

MYTHS

First of all, let’s break some myths:
1. Which is better? BC or IDP? Well, both are same! Examiners of both follow the same instructions and are trained in the exact same way. In addition, their assessments are checked by the authority randomly, so they would not take any risk.
2. The students from English medium can get higher marks easily – a wrong conception. It’s not your medium of instruction – it’s all about the proper usage of English.
3. They just hate us, they don’t want us to get higher marks – another wrong conception. You don’t have any personal clash with them, do you? And again, their assessments are assessed too 🙂
4. If you mention “immigration” for the purpose, you would not get higher marks – same as above!

But yes, you may get a “half band” more in speaking if you appear in a center that is not in a metropolitan city.

Let’s leave all the myths right now, start practicing and seal a decent score 🙂 Read More

My working experience at WPMU DEV

WPMU DEV is one of the leading WordPress based product and service companies; and also where I have been working since 2013. From the beginning, WPMU DEV has contributed a lot to the WordPress community. Besides, they have some awesome products and services like Hustle, Hummingbird, Defender, WP Smush Pro, WP Academy, a really awesome drag and drop theme builder – Upfront, Upfront Builder (with which you can create your own theme and sell it in a marketplace with zero or little coding knowledge), and many more.

Incsub LLC is the parent company of WPMU DEV. They are also the parent of CampusPress and Edublogs. They are also going to introduce WordPress Managed Hosting very soon.

There are 70+ members working in this team across the world and I am really proud to be part of this giant team. I am sharing my WPMU DEV Journey.

I was not a WordPress guy back then. Read More

post

Easiest but powerful encryption in PHP

For a secured system, most of the data is encrypted in server end and sent to database. And after fetching the data from database, just decrypt before showing in front end.

There are lots of procedure to encrypt the data, lots of encryption algorithm out there. But, here we will use a simple encryption method though it’s powerful 🙂

We are going to use mcrypt library of php for this method. You can install the library following the instruction below: (based on Ubuntu) Read More

post

Gulp tutorial for beginners

In a sentence, Gulp is a task runner.

Gulp makes our life easier. In a development workflow, we need to do some tasks frequently and gulp can do some tasks automatically. Don’t think gulp is a replacement of grunt, but it is being improved very very fast.

Gulp is a task/build runner for development. It allows you to do a lot of stuff within your development workflow. You can compile sass files, uglify and compress js files and much more. The kicker for gulp is that its a streaming build system which doesn’t write temp files.

In this article, I will show you to create a simple WordPress plugin taking advantage of gulp. I am using MAC OS (OS X Yosemite) and MAMP as server. Read More

post

How to use SSL in localhost

There are lots of stuffs we need to test with SSL. There are some SSL providers that provide free SSL we can use those in our site. Among free SSL providers, I prefer to use CloudFlare, it’s very easy to use and nothing to setup though it needs ~24 hours to activate. Also, developers from countries where we don’t have super high speed internet, we are used to work in locally hosted site. So, usually we can’t use SSL in local site – in other words most of the developers doesn’t know. But it’s possible, and even it’s not complex at all! Read More