post

মেঘালয় – দ্য গ্রীণ ভ্যালী

দ্য গ্রীন ক্যাপিটাল!

আগেই ঠিক করা ছিল যে এবার একটা লম্বা ট্রেন জার্নি করব। সেই মত বাঙ্গালোর থেকে গৌহাটির ট্রেন গৌহাটি এক্সপ্রেস এর টিকিট কাটলাম। ৫৪ ঘণ্টা শিডিউল টাইম! রাত সাড়ে এগারোটায় বাঙ্গালোর থেকে উঠলাম (যদিও ছাড়তে বেশ দেরী করেছিল), তিন রাত ট্রেনে কাটানোর পর সকাল সাড়ে পাঁচটায় গৌহাটি নামলাম। ৫১ ঘণ্টায়ই পৌঁছে যাই গৌহাটি। হলফ করে বলতে পারি, এই ট্রেন রাজধানি-দুরন্ত এর চেয়েও জোড়ে চলে। সমস্যা হয়েছিল একটু খাওয়া দাওয়া নিয়ে। যদিও অনেক ঘুরি বলে খাওয়া দাওয়া নিয়ে আমার তেমন সমস্যা হয় না, কিন্তু এবার একটু হয়েছিল। পরে স্টেশনে নেমে নেমে খাবার কিনে খেয়েছিলাম।

গৌহাটি নেমেই গাড়ীর খোঁজে বেরিয়ে পড়লাম, গন্তব্য শিলং। গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি হচ্ছে বিধায় সবাই ৩ হাজার করে চাচ্ছিল। অনেক খোঁজার পর একজন ২২০০/- এ রাজি হল। গাড়ী নিয়েই বেরিয়ে পড়লাম শিলঙের উদ্দেশ্যে। গৌহাটি থেকে শিলং হাইওয়ে এক অনিন্দ্য সুন্দর হাইওয়ে। অনেকটা পথই চার লেনের আঁকাবাঁকা রাস্তা পাহাড়ের কোল ঘেঁষে। আর কিছুক্ষণ পর পর মেঘ এসে ভিজিয়ে দিয়ে যায়। ঠাণ্ডার সমস্যা না থাকলে অবশ্যই গাড়ীর জানালা খোলা রাখা উচিৎ। আমি একটু পর পর জানালা থেকে মাথা বের করে মেঘ খাচ্ছিলাম! মেঘে তো আর পেট ভরে না, তাই ঘন্টাখানেক পর গাড়ী থামিয়ে নাস্তা করে নিলাম। Read More